The Mighty INDIA CALLING: দ্বিমিকবাসীর ভারত ভ্রমণের শুরুর কথা (পর্ব ১)

 

( প্রথমেই বলে রাখি, যাদের পরিচিত দুই একজন আর্কিটেক্ট আছেন বা যাদের বাসায় স্থাপত্যের শিক্ষার্থী আছে তারা কমবেশি সবাই জানেন যে আর্কিটেকচার জীবনে একটা ট্যুর হয়, যার নাম ‘ইন্ডিয়া ট্যুর’। যারা জানেন না তাদের জন্য বলে দিচ্ছি, সাধারনত থার্ড ইয়ার শেষে আর্কিটেকচারের শিক্ষার্থীরা পাশের দেশ ভারত ভ্রমণে যায়। এটা কোন অফিশিয়াল ট্যুর নয়। শিক্ষার্থীরা নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে এই ট্যুরটা দেয়। এই ট্যুরের চলটা অনেক আগে থেকেই হয়ে আসছে। ৮০র দশকে যারা শিক্ষার্থী ছিলেন তাদের ট্যুর শুধুমাত্র দিল্লী আগ্রাতেই সীমাবদ্ধ ছিলো। তারপর দিনে দিনে ট্যুরের পরিসর বাড়তে থাকে। বাড়তে বাড়তে এখন এই ট্যুর ষোল সতেরটা শহর জুড়ে চল্লিশ থেকে পয়তাল্লিশ দিন ব্যাপী হয়ে থাকে। যে কোন শিক্ষার্থীর কাছেই এই ধরনের ট্যুর একটা স্বপ্নের মতন ব্যাপার। কারণ এইরকম বয়সে সচরাচর এত বড় ট্যুর কারও ভাগ্যেই জোটে না। আবার অনেকের জন্য এইটাই থাকে প্রথম বিদেশ ভ্রমণ!

তাই দেখা যায় ফার্স্ট ইয়ার থেকেই স্থাপত্য শিক্ষার্থীর মনে নানা রকম জল্পনা কল্পনা চলতে থাকে এই ট্যুর নিয়ে। বিশেষ করে প্রতি বছর যখন একেক ব্যাচের সিনিয়ারদের কাছ থেকে ইন্ডিয়ায় যাওয়া এবং ফেরত আসার কাহিনী শোনা হয় তখন থেকেই ট্যুরের স্বপ্ন ডালপালা মেলতে থাকে। সিনিয়ারদের দেখে দেখে তার মনে স্বপ্ন বোনা হতে থাকে, ‘আমি যখন মানালি যাবো তখন বরফের মধ্যে ডুবে একটা ছবি তো তুলবোই’ ইত্যাদি ইত্যাদি। তাই বলা যায় একেবারে স্থাপত্য জীবনে গোড়া থেকেই একজন শিক্ষার্থীর মোটামুটিভাবেই জীবনের একটা ‘লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য’ থাকে  ইন্ডিয়া ট্যুরে যাওয়া। আর ট্যুরে যাওয়াটাতো সোজা ব্যাপার না। সেটার জন্য সবার আগেই বিশাল আর্থিক সামর্থ্য দরকার। সেটার যোগান তো এক দিনে হবে না, তাই ট্যুরে যাওয়ার এক-দুই বছর আগে থেকেই চলতে থাকে টাকা জমানোর কাজ। প্রতিদিনের টিউশনি বা প্রোফেশনাল কাজ দ্বারা উপার্জিত অর্থ থেকে একটা বড় অংশ আলাদা করে রাখতে হয় ইন্ডিয়া ট্যুরের জন্য। তাই কোন না কোনভাবে একজন শিক্ষার্থী ট্যুরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত কোনভাবেই স্মৃতি থেকে সরিয়ে রাখতে পারে না ‘ইন্ডিয়া ট্যুর’এর ব্যাপারটা!)

সেই ২০১৪ সালের কথা। থার্ড ইয়ারে ক্লাস শুরু হওয়ার পরপরই আমরা বলাবলি করতাম, ‘আমরা না এবার ইন্ডিয়ায় যাবো?’ । থ্রি টুতে একদিন আমাদের মিটিং হলো। সেদিন শুভ জানিয়ে দিলো, ‘যাবো না মানে, অবশ্যই যাবো!’। সেই থেকে আমাদের প্রিপারেশন শুরু। প্রথমে শুরু হলো টাকা জমানো। অ্যাডমিশনের কোচিং করিয়ে সবাই রোজগার জমিয়ে রাখতে লাগলো। তবে সেটা আসলে কিছুই না। যে যেভাবে পারলো টাকা জমাতে লাগলো। কথায় কথায় সবার টাকা বাঁচানোর ফন্দি, ‘বুঝলি সামনে ট্যুর আছে, এখন টাকা খরচ করতে পারবো না’। এরই মধ্যে এক ফাঁক দিয়ে আমাদের কমিটি গঠন হয়ে গেলো।

এর সাথে প্যারালালি আসলো পাসপোর্টের কাজ। যাদের যাদের পাসপোর্ট নাই তারা ফাঁকে ফোকড়ে ছুটলো পাসপোর্ট অফিসে। ক্লাস শেষ হওয়ার আগেই আমরা একবার পরীক্ষা এগিয়ে নেওয়ার জন্য চেষ্টা করেছিলাম যাতে পরীক্ষার পরের ছুটিটা লম্বা হয়। কিন্তু সে চেষ্টা ব্যার্থ গেলো। রুটিন অনুযায়ী পরীক্ষার আগে আমরা দেড়মাসেরও বেশি সময় পাবো, কিন্তু পরীক্ষার পর পাবো কাটায় কাটায় এক মাসের মত।

ক্লাস শেষ হতেই নভেম্বর মাসে পাসপোর্ট রেডি হওয়ার পাশাপাশি ভিসার চেষ্টা শুরু হলো। প্রথমে আমরা নিয়ম অনুযায়ী অনলাইনে অ্যাপ্লাই করলাম। কাজ হলো না। তারপর ধরা হলো দালাল। দালাল ধরার পর প্রতিদিন তিন চারজনের ইন্টারভিউয়ের ডেট পড়তে লাগলো। এভাবেই ধীরে ধীরে ভিসা হচ্ছিলো। ভিসার পুরো ব্যাপারটা অবনী নিদারুণ ধৈর্য্য নিয়ে সামাল দিচ্ছিলো।

ভিসা হতে তো সময় লাগবে। কিন্তু তাতে কি, কেনাকাটা আছে না? সবাই চলে গেলাম ঢাকা কলেজ আর বংগ বাজার। শীতের কাপড়চোপড়, মোটা প্যান্ট, হাতমোজা, পা মোজা, মাফলার, উলের টুপি, ইনার- আরও কত কি কিনলাম! দোকানে দোকানে তখন আমাদের লোকজনকে দেখা যায়। তখন একজন আরেকজনের সাথে সলাপরামর্শ করে কেনাকাটা করি। আমি বাটা থেকে ওয়াটারপ্রুফ কেডস কিনলাম। তারপর নিউমার্কেট থেকে কিনলাম হ্যান্ড ব্যাগ আর ট্রলি ব্যাগ বা মেইন লাগেজ।

এইসব কেনাকাটা করতে করতে তিনজন ছাড়া বাকি সবার ভিসা মোটামুটি হয়ে গেলো। জানুয়ারি মাসে আমাদের পরীক্ষার মধ্যেই একদিন ডেট পড়লো পাসপোর্ট জমা দেওয়ার। ঠিক তার আগের দিন নাটকীয়ভাবে রিন্তু ট্যুরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললো! নাটকীয় বলছি এই জন্য কারণ দীর্ঘদিন ধরেই রিন্তু বলে আসছিলো যে ও ট্যুরে যাবে না। আমরা অনেক হাতে পায়ে ধরার পরেও ও কিছুতেই রাজী হচ্ছিলো না। তাই হঠাৎ করে যেদিন শুনলাম রিন্তু ইন্ডিয়া যাবে- আমরা আমাদের মন নেচে উঠলো। যেদিন আমরা সবাই আসলাম কমিটির হাতে পাসপোর্ট জমা দিতে, সেদিন রিন্তু নিশাতকে সাথে নিয়ে গেলো পাসপোর্ট অফিসে- ইমার্জেন্সি পাসপোর্ট করার জন্য (ওর বুকের পাটা দেখে আমি মনে মনে হতবাক হয়ে গেলাম, কী সাহস!)। তবে আল্লাহর রহমতে একেবারে শেষ মুহুর্তে রিন্তুসহ বাকি চারজনের ভিসা করানো সম্ভব হয়েছিলো।

এর মধ্যে দফায় দফায় প্ল্যান হতে লাগলো। আমরা কোন রুটে যাবো, কোথায় কয়দিন থাকবো এইসব নিয়ে আদিবা দিনরাত লিস্ট বানাতে লাগলো। একদিন মিটিং ডেকে সবাইকে ট্যুরের আউটলাইনটা বুঝিয়ে দেওয়া হলো। একেবারে শেষ মুহুর্তে লাগলো এক গণ্ডগোল।

দেশের অস্থির রাজনৈতিক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে আমাদের একটা পরীক্ষা সাত দিন পিছিয়ে দেওয়া হলো। আমাদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়লো। আমাদের পাশাপাশি জিরো নাইন ব্যাচের সবাই মরিয়া হয়ে উঠলো। ওনাদেরও একই সময়ে ইন্ডিয়া ট্যুরে যাওয়ার কথা।  নোটিশ আসার পরদিনই আমরা আর জিরো নাইন ব্যাচের সবাই গিয়ে ডিপার্টমেন্টের হেডকে জানালাম আমাদের সমস্যার কথা। আমরা দুই ব্যাচ অনুরোধ করলাম যেন আমাদের পরীক্ষাটা এগিয়ে নেওয়া হয়। হেড, ডিন, ডি এস ডাব্লিউর মধ্যে মিটিং বসলো। মিটিং শেষে ওনারা জানালেন পরীক্ষাটা এগিয়ে নেওয়া হয়েছে শুধু আমাদের দুই ব্যাচের জন্য। আমরা হাঁফ ছাড়লাম, যাক বাবা বাঁচা গেলো।

ঐদিকে কাস্টমসের অফিস টাইমিংয়ের  সাথে মিল রেখে রওয়ানা দিতে গেলে শেষ পরীক্ষার পরদিন রওয়ানা দেওয়া সুবিধাজনক না। ওদিকে জিরো নাইন ব্যাচও শেষ পরীক্ষা দিয়ে রাতেই রওয়ানা হচ্ছে। তাই সিদ্ধান্ত হলো আমরাও পরীক্ষা দিয়ে রাতের বেলাতেই রওয়ানা দিবো। সিদ্ধান্তটা নিজের কাছেই কেমন যেন লাগলো, তাই বলে পরীক্ষা দিয়ে রাতের বেলায়ই? ব্যাপারটা একটু বেশি বেপরোয়া হয়ে যায় না?

এমনিতেও পরীক্ষার গ্যাপ কম। তারউপর আবার একটা পরীক্ষা এগিয়ে এনেছি, মাঝে সময় খুব কম। এরমধ্যে আমাদের ব্যাগ গুছানো চলতে লাগলো। জানুয়ারির ষোল তারিখ আমরা পরীক্ষার হলে গেলাম আরবান পরীক্ষা দিতে। সারা বুয়েট ফাঁকা, শুধু আমরা কয়েকজন একটা রুমে বসে পরীক্ষা দিলাম। দুপুর দুইটা থেকে পাঁচটা পর্যন্ত পরীক্ষা চললো। খাতা জমা দিয়ে এক মুহূর্তও কেউ সময় নষ্ট করলাম না। সবাই বাসার দিকে দৌড় লাগালাম। আমাদের বলে দেওয়া হলো রাত দশটার মধ্যে প্লিন্থে উপস্থিত থাকতে।

আমি বাসায় ফেরার পথে একটা সানগ্লাস কিনলাম। বাসায় পৌঁছে শেষ মুহূর্তের জিনিসপত্র ভরলাম ব্যাগে। সবাই নানা রকম উপদেশ দিতে লাগলো যা বেশির ভাগই অর্থহীন। কিন্তু আমি মনোযোগ দিয়ে শুনলাম সব। পেটের মধ্যে কেমন যেন পাক খেয়ে উঠতে লাগলো আর এক অজানা আশংকায় বুকের ভেতর গুরগুর করতে লাগলো। রাত আটটা বাজতেই এশার নামাজ পড়ে, ভাত খেয়ে রেডি হয়ে নিলাম। নয়টার দিকেই বাসা থেকে রওয়ানা দিলাম বুয়েটের উদ্দেশ্যে।

cc

শীতের রাতের জমজমাট প্লিন্থ ১৬ই জানুয়ারি, ২০১৫ (কৃতজ্ঞতায় নিশাত তাসনিম)

দশটা বাজার অনেক আগেই আমি পৌঁছে গেলাম ডিপার্টমেন্টে। তখনও তেমন কোন লোকজন আসে নাই। ধীরে ধীরে একজন একজন করে আসতে লাগলো। প্রায় সবার সাথেই বাবা-মা আছে। প্রথমবারের মত আমাদের আব্বু আম্মুদের পদচারণায় শীতের রাতের প্লিন্থ গমগম করে উঠলো। ওদিকে বাস আসে নাই, কখন আসবে তার খবরও নাই। তবে আমাদের খারাপ লাগছিলো না। সিনিয়ররা এসে নানারকম উপদেশ দিয়ে গেলো। জুনিয়ররা আসলো বিদায় দিতে। আমাদের জন্য টি শার্ট আসলো, ব্যাজও আসলো, বড় ব্যানারও টানানো হলো লুভরে কিন্তু বাসের আর পাত্তা পাওয়া গেলো না। কমিটির লোকজনকে সবাই বারবার জিজ্ঞেস করতে লাগলো। ওরাও বাসের সাথে যোগাযোগ করার আপ্রাণ চেষ্টা করে যেতে লাগলো। ওদিকে রাত এগারোটা-সাড়ে এগারোটা বেজে যাচ্ছে। আমার আম্মুর কপালে চিন্তা দেখা দিলো, ‘মেয়ে এই কাদের সাথে যাচ্ছে? এরা তো বাসই ঠিক করতে পারে না। দেশের মধ্যে একটা বাস কখন আসবে বলতে পারে না- এরা ইন্ডিয়া গিয়ে কি করবে?’ । এই সব চিন্তা করে আমার আম্মু হতাশ দৃষ্টিতে কমিটির লোকজনদের দিকে তাকাতে লাগলো।

রাত বারোটার দিকে বাস এসে হাজির হয়। আমরা আমাদের ব্যাগট্যাগ নিয়ে দৌড়িয়ে ছুটে যাই বাসের দিকে। লাগেজ কম্পার্টমেন্টে আমাদের লাগেজ উঠাতে দেই। যতক্ষণ না লাগেজ ভিতরে ঢুকানো হচ্ছে ততক্ষণ নিচে দাঁড়িয়ে থাকি। খুব তাড়াতাড়ি আমাদের লাগেজ ওঠানো হয়ে যায়। সাথে সাথে আমরাও উঠে পড়ি বাসে। জানালা দিয়ে আম্মুর দিকে হাত নেড়ে বিদায় জানাই। ঠিক সাড়ে বারোটার সময় আমাদের বাস যাত্রা শুরু করে। তারপর-

 

তারপর?

তারপর হলো শুরু-

৪৬ জন শিক্ষার্থীর জীবনে ঘটে যাওয়া সোনার কালিতে লেখা এক ঐতিহাসিক মহাকাব্য যার নাম ‘ইন্ডিয়া কলিং’- এর ভূমিকা রচিত হলো মাত্র। ৪৩ দিন, ১৫টা শহর, অচেনা দেশ, টানটান অ্যাডভেঞ্চার , নতুন নতুন অভিজ্ঞতা আর পদে পদে অনিশ্চয়তায় ভরা এক মহা কাব্যিক উপাখ্যানের শুরু হলো এখান থেকেই………

This entry was posted in Uncategorized, বাংলা and tagged , , , , , , . Bookmark the permalink.

8 Responses to The Mighty INDIA CALLING: দ্বিমিকবাসীর ভারত ভ্রমণের শুরুর কথা (পর্ব ১)

  1. Ridwana says:

    কি দিন ছিল! পুরাই স্মৃতিতে ফেরত গেলাম নুজহাত। Frown
    আবার কোথাও যাওয়া উচিৎ আমাদের সবার একসাথে! Grin

  2. Tanweer says:

    খুবই সুন্দর ও প্রাণবন্ত লিখা নুজহাত Smile সেসব দিনের কথা মনে করিয়ে দেয়। ভাল লাগছে।

  3. mouly rahman says:

    অনেক সুন্দর করে লিখসিস নুজহাত, তোর লেখা গুলো পড়ে আবার সব মনে পরতেসে… best days of our lives ^_^ i’ll cherish throughout my life <3

  4. iffat salwa nova says:

    খুব ভাল লাগল শুরুর সেই দিন এর কথা পরে… feel like rewinding each moment…. eagerly waiting for the next one… Grin

  5. Lia Chowdhury says:

    Keep it up Nuzhat! You have such a talent! Grin

  6. শিহাব শাহরিয়ার অপু says:

    আপু এই ট্যুরে পার পারসন কত খরচ হয়েছে একটু স্পেসিফিক ভাবে বললে ভালো হত।

    ধন্যবাদ

    • nuzhat says:

      আমরা দেশে থাকতেই কমিটিকে জমা দিয়েছিলাম চল্লিশ হাজার টাকা। এই টাকার মধ্যে ছিলো হোটেলের থাকা আর বড় বড় সব জার্নি। খাওয়া দাওয়া, শহরের মধ্যে ঘোরাঘুরি আর কেনাকাটা ছিলো নিজেদের ব্যাপার। তবে ইন্ডিয়া অনেক সস্তার দেশ। চাইলে অনেক কম খরচে এখানে সারভাইব করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *